সিলেট সানরাইজার্সের অধিনায়কের দৌড়ে বিজয় মিঠুন

২০২২ বিপিএলে নতুন রুপে দেখা যাবে সিলেট ফ্র্যাঞ্চাইজিকে। নাম পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে এবারের বিপিএলের নাম ঘোষণা করেছে সিলেট ফ্র্যাঞ্চাইজি। হাজির হবেন ‘সিলেট সানরাইজার্স’ হিসেবে। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) শুরু হতে আর মাত্র ৭ দিন বাকি।

প্লেয়ার্স ড্রাফটে তেমন কোনো নামী ক্রিকেটারর না ভেড়াতে পারলেই পরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের তারকা ক্রিকেটার লেন্ডল সিমন্সকে সই করেছে সিলেট সানরাইজার্স। সিলেট সানরাইজার্সও নিশ্চিত করেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান ডেভন থমাস।

তবে সিলেটের সামনে সবচেয়ে বড় সমস্যা হতে পারে অধিনায়কত্ব। সিলেট সানরাইজার্স এখনো অধিনায়কের নাম ঘোষণা করেনি। বাংলাদেশের অনেক ক্রিকেটারই সিলেট সানরাইজার্সের অধিনায়ক হওয়ার দৌড়ে রয়েছেন।

সিলেট সানরাইজার্সের হয়ে খেলবেন জাতীয় দলের তারকা ফাস্ট বোলার তাসকিন আহমেদ। এছাড়াও দেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে রয়েছেন মোহাম্মদ মিঠুন, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, আনামুল হক বিজয়। এছাড়া বিদেশি ক্যাটাগরিতে সরাসরি সাইনিং করা হয়েছিল শ্রীলঙ্কার দীনেশ চান্দিমাল, ওয়েস্ট ইন্ডিজ কেসরিক উইলিয়ামস ও দক্ষিণ আফ্রিকার কলিন ইনগ্রামকে।

এর আগে অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেননি ফাস্ট বোলার তাসকিন আহমেদ। তাই সিলেটের অধিনায়ক যে তিনি হচ্ছেন না এটা একপ্রকার নিশ্চিত। তবে সবার থেকে এগিয়ে রয়েছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, আনামুল হক বিজয় এবং মোহাম্মদ মিঠুন।

ইন্ডিপেন্ডেন্স কাপে অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। তার হাত ধরেই ইন্ডিপেন্ডেন্স কাপে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পথে রয়েছে ওয়ালটন। তাই সিলেটের অধিনায়ক হওয়ার দৌড়ে সবচেয়ে বেশি এগিয়ে রয়েছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। ২০১৯ সালে সিলেট থান্ডার্সের অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেছেন মোসাদ্দেক।

এছাড়াও বর্তমান সময়ে দুর্দান্ত ফর্মে রয়েছেন জাতীয় দলের এই অলরাউন্ডার। মোসাদ্দেক হোসেন ছাড়াও অধিনায়ক হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন আনামুল হক বিজয় এবং মোহাম্মদ মিঠুন। আনামুল হক বিজয় এর আগে ঘরোয়া ক্রিকেট লীগে অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেছেন।

সিলেট সানরাইজার্সের স্কোয়াড : তাসকিন আহমেদ, দীনেশ চান্দিমাল, কেসরিক উইলিয়ামস, কলিন ইনগ্রাম, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মোহাম্মদ মিঠুন, আল আমিন হোসেন, নাজমুল ইসলাম অপু, রবি বোপার, অ্যাঞ্জেলো পেরেরা, এনামুল হক বিজয়, সোহাগ গাজী, অলক কাপালি, মুক্তার আলি, সিরাজ আহমেদ, মিজানুর রহমান, নাদিফ চৌধুরী, জুবায়ের হোসেন লিখন, শফিউল হায়াত হৃদয়, লেন্ডল সিমন্স, ডেভন থমাস।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *