পেসারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিং দেখে খুশি গিবসন

উইকেট আর কন্ডিশনের কারণে ঘরের মাঠে বাংলাদেশের পেস বোলাররা সুবিধা করতে পারেন না। সেই অভ্যাসে তারা অনেক সময় ভুলে যান বিদেশের সহায়ক কন্ডিশন কাজে লাগাতেও।

তবে আজ (শনিবার) থেকে বে ওভালে শুরু সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম দিন অন্য চেহারায় দেখা গেছে টাইগার পেসারদের। টস জিতে তাসকিন-শরিফুলদের হাতে বল তুলে দেন অধিনায়ক মুমিনুল হক। শুরুটা দুর্দান্তই ছিল পেসারদের।

প্রথম ঘণ্টায় ১৩ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১৫ রান তুলতে পারে নিউজিল্যান্ড। যদিও ডেভন কনওয়ের সেঞ্চুরিতে (১২২) পরে ঘুরে দাঁড়িয়েছে কিউইরা। ৫ উইকেটে ২৫০ রান নিয়ে শেষ করেছে প্রথম দিন।

তারপরও বোলারদের পারফরম্যান্সে সন্তুষ্টি ঝরে পড়লো পেস বোলিং কোচ অটিস গিবসনের কণ্ঠে। গিবসন শুধু সন্তুষ্টই নন, তাসকিন আহমেদ, শরিফুল ইসলাম, এবাদত হোসেনদের নিয়ে রীতিমত গর্বিত।

প্রথম দিনের খেলা শেষে গিবসন বলেন, ‌‘আমার মনে হয় আমরা প্রথম ঘণ্টায় দুর্দান্ত ছিলাম। আমরা বেশ কয়েকবার তাদের ব্যাটে পরাস্ত করেছি এবং আরও বেশি উইকেট পেতে পারতাম। কনওয়ে খুব ভালো খেলেছে। তারপরও সবমিলিয়ে ২৫০ রানে ৫ উইকেট (আমাদের জন্য) খারাপ না।’

টস জিতে বোলিং নেওয়ার সিদ্ধান্ত কি ঠিক ছিল? টাইগার পেস বোলিং কোচের জবাব, ‘আমরা বাংলাদেশ থেকে এসেছি যেখানে খুব বেশি ঘাস নেই উইকেট। তাই ঘাসটা একটা বড় ফ্যাক্টর। টসে আমরা ভেবেছিলাম নতুন বলে কিছুটা ম্যুভমেন্ট পাব এবং সেটি কিন্তু পেয়েছিও। কিন্তু গরম বেশি থাকায় আর্দ্রতা খুব দ্রুত কমে যায় এবং উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য ফ্ল্যাট হয়ে যায়।’

তবে সবমিলিয়ে বোলারদের পারফরম্যান্সে খুশি গিবসন। তিনি বলেন, ‘ছেলেরা আজ যেভাবে লড়াই করেছে আমি গর্বিত। ফাস্ট বোলাররা এগিয়ে এসেছে। মিরাজ একপ্রান্ত থেকে আটকে রেখেছিল, যা কিনা অপর প্রান্ত থেকে ফাস্ট বোলারদের সাহায্য করেছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.