বছর দুয়েকের মধ্যে ওয়ানডে ক্রিকেট হারিয়ে যাবে

বেন স্টোকস অবসর নেওয়ার পর গত এক মাস ধরে ওয়ানডে ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ নিয়ে বিশ্ব ক্রিকেটে তর্ক-বিতর্ক চলছে। ওয়াসিম আকরামের মতো কিংবদন্তি ওয়ানডে ক্রিকেটকে বন্ধ করে দিতে বলেছেন। আবার এর বিপরীত মতও আছে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ঠাসা সূচি নিয়ে এবার উচ্চকিত হলেন মইন আলী। টি-টোয়েন্টি আর ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটের দাপটে ওয়ানডে হারিয়ে যাবে বলেই মত এই অলরাউন্ডারের।

টি-টোয়েন্টির জনপ্রিয়তা এখন ক্রমশ বাড়ছে। এ ছাড়া প্রাচীন ও অভিজাত সংস্করণ হিসেবে টেস্ট ক্রিকেটের আলাদা মর্যাদা তো আছেই। তাই বিপদে আছে ওয়ানডে ক্রিকেট। চলতি ইংলিশ গ্রীষ্মে ২৫ দিনের মধ্যে ১২টি সীমিত ওভারের ম্যাচ খেলেছে ইংল্যান্ড। তাই এমন ব্যস্ত সূচি নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।

বেন স্টোকস যেমন অবসর নিয়ে বলেছিলেন, ‘আমরা ক্রিকেটাররা গাড়ি নই যে তেল ভরে দিয়ে শুধু চালিয়েই যাবেন’, তেমনই অনেকে মুখ খুলছেন এই ব্যস্ত সূচির বিরুদ্ধে।

টেস্ট থেকে অবসর নেওয়া মঈন আলী ওয়ানডের ভবিষ্যৎ নিয়ে বলেছেন, ‘এই মুহূর্তে এটার ভবিষ্যৎ আমার কাছে টেকসই নয় বলেই মনে হচ্ছে। কিছু একটা করতেই হবে, কারণ আমার ভয় হচ্ছে, বছর দুয়েকের মধ্যে ওয়ানডে ক্রিকেট হারিয়ে যেতে পারে। সত্যি বলতে, এটিকে এখন দীর্ঘ ও বিরক্তিকর এক সংস্করণ মনে হয়। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট আছে, টেস্ট আছে যা দারুণ সংস্করণ। ৫০ ওভারের ক্রিকেট মনে হচ্ছে মাঝামাঝি পড়ে গেছে- এই মুহূর্তে এটিকে কোনো গুরুত্বই দেওয়া হচ্ছে না।’

ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটের রমরমার উদাহরণ টেনে মঈন আরো বলেন, ‘এই মুহূর্তে সব একেবারে এলোমেলো। আরো দুটি ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট লিগ আসছে, যা আকর্ষণীয়। কিন্তু এসবের জন্য যদি টেস্ট ম্যাচ বা ওয়ানডে মিস করতে হয়, তা দুঃখজনক। কারণ ইংল্যান্ডের হয়ে সবাই সব সময় খেলতে চায়। কেউই বাদ দিতে চায় না। আমার বয়স যখন একটু কম ছিল, বিশ্রাম একেবারেই পছন্দ করতাম না।ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি, এখন অনেক বেশিই হচ্ছে (খেলা)। একদিক থেকে এটা ভালো। কিন্তু এসব ক্রিকেটের কখনোই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের পথে বাধা হয়ে দাঁড়ানো উচিত নয়।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.